স্বামী সন্তান সহ কোভিড-১৯ মুক্ত হলেন দশমিনার উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

দশমিনা(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: পটুয়াখালী জেলার দশমিনা উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোসাঃতানিয়া ফেরদৌস এবং তার ৫বছরের শিশু সন্তান এবং স্বামী মাইনুল ইসলাম,পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের মেইন্টেনেইনস ইঞ্জিনিয়ার করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

প্রায় ৩সপ্তাহ আইসোলেশনে থেকে কোভিড-১৯কে জয় করেছে দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও তার পরিবার। গত ২০জুন নির্বাহী অফিসার ও তার সন্তানের করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ আসে এর ৭দিন পর তার স্বামীর করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ হয়। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হবার পর তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা তার নিজ কর্মস্থলের বাসভবনে চিকিৎসায় ছিলেন পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শে-রে-ই বাংলা মেডিকেলে চিকিৎসকদের পরামর্শে আইসোলেশনে চিকিৎসা সেবা গ্রহন করেন।

সম্প্রতি নিয়ম অনুযায়ী ২য় দফায় পরীক্ষায় দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ তার পরিবারের সদস্যদে কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষয় নেগেটিভ আসে। দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও তার পরিবারের
করোনা নেগেটিভ আসায় প্রশাসনের আন্যন্য দপ্তরের কর্মকর্তারা মহান
আল্লাহর কাছে কৃতঞ্জতা প্রকাশ করেন। করোনা সময় কালিন অবস্থা সম্পর্কে যানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনাকে জয় করতে হলে আতংক নয় মনোবল থাকা আবশ্যক এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলতে হবে।

তিনি আরো বলেন সামজিক সচেতনতা,সামজিক দূরত্ব,সরকার প্রদেয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেই করোনা থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। দশমিনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তা ডাঃমোস্তাফিজুর রহমান বলেন,দশমিনা উপজেলায় ১৮ জুলাই পর্যন্ত কোভিড-১৯ এ নমুনা পরীক্ষায় মোট আক্রান্ত ৪৮জন। দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সুস্থ্য ১৯ জন। কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরন করেন ১ জন। বাকী আক্রান্তরা নিজ বাসায় চিকিৎসাসেবা গ্রহন করছেন।