স্বামী পরিত্যাক্তা অসহায় মহিলাকে ধর্ষণ ও গর্ভপাত নষ্ট: ইউপি সদস্য সহ আটক-৩

হাসনাইন আহমেদ হাওলাদার, ভোলা প্রতিনিধিঃ ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার সাচড়া ইউনিয়নে অবৈধ মেলামেশার পর অন্তঃসত্ত্বার গর্ভপাত নষ্ট করে বাচ্চার লাশ পানিতে ভাসিয়ে দেয়ার অপরাধে ৩ জনকে আটক করেছ থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- সাচড়া ইউনিয়নের স্থানীয় ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার শাহাজল হক, অভিযুক্ত আবু তাহের ও সফিজল গণি। এব্যপারে বোরহানউদ্দিন থানায় ধর্ষন ও গর্ভপাত নষ্ট করার অপরাধে মামলার প্রস্তুতি চলছে ।

২২ এপ্রিল বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টায় বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ বশির গাজী ও বোরহানউদ্দিন থানার ওসি মু. এনামুল হক সাচড়া শিবপুর গ্রাম হতে বাচ্চাটির লাশ উদ্ধার করেন । তথ্য মতে, সাচরা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা স্বামী পরিত্যাক্তা শারীরিক প্রতিবন্ধী জনৈক মহিলার সাথে দীর্ঘদিন অবৈধ মেলামেশা করেন একই এলাকার মৃত মাজেদ মৃধার ছেলে আবু তাহের ও মৃত সামছল হকের ছেলে সফিজল গণি। এক পর্যায়ে মহিলাটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। তিন দিন পূর্বে ঐ অন্তঃসত্ত্বা মহিলার অকাল গর্ভপাত ঘটিয়ে মৃত নবজাতকের লাশ খালে ভাসিয়ে দেয়া হয়।

পরে স্থানীয় এক ব্যাক্তি পানি থেকে লাশটি তুলে খালের পাড়ে মাটি চাপা দিয়ে রাখে। এ ঘটনা স্থানীয় ভাবে ২ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেয়ার জন্য শালীশ বিচার করে সাচড়া ৯নং ওয়ার্ড এর ইউপি মেম্বার মোঃ শাহাজল হক। এ ব্যাপারে বোরহানউদ্দিন থানার অফিসার ইন-চার্জ মু. এনামুল হক বলেন ধর্ষণ এবং অবৈধ গর্ভপাত নষ্ট করায় থানায় মামলা করা হয়েছে।

স্থানীয় মেম্বার সহ অভিযুক্ত আবু তাহের ও সফিজল গণি কে আটক করা হয়েছে। দোষিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। যারা স্থানীয় ভাবে শালীশ বিচার করেছেন তারাও আইনের আওতায় আসবে। বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ বশির গাজী বলেন, যারা এ অপরাধের সাথে জড়িত সকলকে শাস্তি পেতে হবে।