সালথায় সংসদ উপ‌নেতার পক্ষে  চা-দোকা‌নি‌ এবং অ‌টো-চালক‌দের মা‌ঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

বিধান মন্ডল ফ‌রিদপুর প্র‌তি‌নি‌ধিঃ ফ‌রিদপু‌রের সালথা উপ‌জেলায় মহামারি ক‌রোনা  ভাইরা‌সের প্রদূর্ভাব পরিস্থিতিতে  কর্মহীন হ‌য়ে পড়া চা বিক্রেতাদের এবং অ‌টোভ্যান ও মা‌হিন্দ্র চালক‌দের  মাঝে ফরিদপুর -২ (নগরকান্দা – সালথা) আসনের  সংস‌দ সদস্য ও জাতীয় সংসদের মাননীয় সংসদ উপ‌নেতা সৈয়দা সা‌জেদা চৌধুরী এম‌পি এবং তার রাজ‌নৈতিক প্রতি‌নি‌ধি বিশিষ্ট  কৃ‌ষি গ‌বেষক শাহাদাব আকবর চৌধুরী লাবু এর ব্যক্তিগত তহবিল থে‌কে  খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন সালথা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ওয়াদুদ মাতুব্বর এবং সংসদ উপনেতার এ‌পিএস শফিউ‌দ্দিন আহ‌মেদ।

উপজেলার গ‌ট্টি ইউনিয়‌নের কর্মহীন চা দোকানিদের মধ্যে ৫ম পর্যা‌য়ে আড়াইশতা‌ধিক এবং অ‌টোভ্যান ও মা‌হিন্দ্র চালক‌দের মাঝে দুইশতা‌ধিক খাদ্যা সামগ্রীর প্যা‌কেট বৃহস্প‌তিবার ২৩শে এ‌প্রিল বেলা ১০ টায় গ‌ট্টি ইউনিয়ন প‌রিষ‌দে বিতরন করা হয়। প্র‌তি‌টি প্যা‌কে‌টে চাল, ডাল, তেল, লবন,দিয়ে‌ছে।  উপ‌জেলার ৮ টি ইউনিয়নের প্রায় প‌নে‌রোশতা‌ধিক ক‌রোনায় কর্মহীন চা দোকা‌নি‌ এবং পর্যায়ক্র‌মে পাঁচশতা‌ধিক অ‌টোভ্যান ও মা‌হিন্দ্র চাল‌দের মা‌ঝে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হ‌য়।

খাদ্য সামগ্রী বিতরনের সময় সামাজিক ও  নিরাপদ দুরত্ব বজায় রে‌খে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। আরও উপস্থিত ছিলেন – সালথা উপ‌জেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ হা‌সিব সরকার, সালথা থানা ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, গ‌ট্টি ইউনিয়‌নের চেয়ারম্যান হা‌বিবুর রহমান লাবলু প্রমূখ।

উপ‌জেলা প‌রিষ‌দের চেয়ারম্যান মোঃ ওয়াদুদ মাতুব্বর ব‌লেন- মাননীয় সংসদ উপ‌নেতা এবং তার রাজ‌নৈ‌তিক প্র‌তি‌নি‌ধি শাহাদাব আকবর লাবু চৌধুরীর নিজস্ব তহ‌বিল থে‌কে ক‌রোনা ভাইরাসে কর্মহীন হ‌য়ে পরা  দেড়শতাধিক  চা দোকানিদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। এভাবে উপজেলার আট টি ইউনিয়নে সকল চা দোকানিদের মাঝে এ খাদ্যসামগ্রী বিতরন করা হবে। আমা‌দের খাদ্য সামগ্রী বিতরন কার্যক্রম অব্যহত থাক‌বে আশাক‌রি সালথা উপ‌জেলায় কেউ অভা‌বে না খে‌য়ে থাক‌বে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হাসিব সরকার বলেন- উপনেতা মহোদয় এর পাঠানো খাদ্য সামগ্রী বিতরন এর পাশাপাশি সরকরী ত্রানও দেওয়া হচ্ছে যথেষ্ট। যে পরিমান দেওয়া হচ্ছে তাতে গরীবও অসহায় মানুষ না খেয়ে থাকবে না। তিনি চা দোকানদারদের হুশিয়ারি করে বলেন, দয়া করে আপনারা ঘরে থাকবেন। কারন এই মহামারী করোনা ভাইরাস মানুষের মধ্যে ছড়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আর তা হলো চা এর দোকান। বিশেষ করে  চা দোকান বন্ধ রাখলে অনেকটাই এই ভাইরাসের ভয়াবহ থেকে রক্ষা হবে।