সাম্প্রতিক নানা ইস্যুতে রহস্যময় হয়ে ওঠা চরিত্র ইসতিয়াক আহমেদ কারাগারে

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অবশেষে গ্রেফতার হয়েছে যুবক ইসতিয়াক আহমেদ সনি। দৌলতপুর থানায় একটি মামলা হলে দৌলতপুর থানা পুলিশ ইসতিয়াক আহমেদ সনিকে বুধবার সকালে আদালতে সোপর্দ করে।

মঙ্গলবার ৮ সেপ্টেম্বর তাকে গ্রেফতার করা হয়। কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সমাজকর্মী ও স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা হাসিনুর রহমান হত্যাকান্ডের বেশ কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্থানীয় রাজনীতি নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে ইসতিয়াক আহমেদ সনি মন্তব্যে লিখেন ‘দৌলতপুরে খুব তাড়া তাড়ি পিলখানার মত ঘটনা ঘটবে’।

স্থানীয় এমপি বাদশাহর ফুফাতো ভাই হাসিনুর হত্যাকান্ডের পর ইসতিয়াক আহমেদ সনি’র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ওই মন্তব্য পুনরায় আলোচনায় আসে, সন্দেহের দানা বাঁধে এলাকাবাসীর মধ্যে। একই মন্তব্যের আশপাশে সনি গালাগাল করে ও হুমকি দিয়ে লেখেন খুন হওয়া হাসিনুর রহমানের পরিবারকে।

সমালোচনার ঝড় বয়ে যায় ফিলিপনগরসহ দৌলতপুরের সর্বত্র। বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করার পরও প্রশাসন থাকে নিশ্চুপ। প্রশাসনের এমন নিশ্চুপ ও নির্বিকার থাকার কারনে স্থানীয় রাজনৈতিক মহল, গণমাধ্যমকর্মীসহ সচেতন সমাজে ক্ষোভেরও সৃষ্টি হয়। অবশেষে মঙ্গলবার ইসতিয়াক আহমেদ সনি আটকের খবরে জনমনে কিছুটা স্বস্থি ফিরে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মীয় মৌলবাদ ছড়িয়ে, পিলখানা হত্যাকাণ্ডের আতঙ্ক ছড়িয়ে, সাম্প্রতিক বিভিন্ন ইস্যুতে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে, হাসিনুর হত্যাকান্ডের পূর্বাভাস ছড়িয়ে চরম সমালোচনায় পড়া ইসতিয়াকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। দৌলতপুর উপজেলার সংগ্রামপুর গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে রিপন মন্ডল বাদী হয়ে ইসতিয়াক আহমেদ সনির বিরুদ্ধে মঙ্গলবার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন।

ইসতিয়াক আহমেদ সনি দৌলতপুর উপজেলার দক্ষিণ-পশ্চিম ফিলিপনগর গ্রামের মাহাতাব উদ্দিনের ছেলে। এ বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি নিশিকান্ত সরকার জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলে ইসতিয়াক আহমেদ সনিকে গ্রেফতার করে বুধবার সকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।তথ্যমতে,আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে আটক ইসতিয়াক।