সংবাদের প্রেক্ষিতে সাংবাদিকের নামে মামলা প্রতিবাদে সাংবাদিকদের ঐক্য

কুষ্টিয়া অঞ্চলের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজপোর্টাল দৌলতপুর টোয়েন্টিফোরের সিইও সাংবাদিক তাশরিক সঞ্চয়সহ তিনজনের নামে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমনের পক্ষে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (আইসিটি) হয়রানিমূলক মামলার ঘটনায় দৌলতপুর উপজেলার সর্বস্তরের সাংবাদিকরা নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। মামলাটি অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবিতে এখানকার সাংবাদিকরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।

মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) বেলা ১২টায় উপজেলার সর্বস্তরের সাংবাদিকরা মামলাটি প্রত্যাহারের দাবিতে উপজেলা পরিষদ বাজারে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

দৌলতপুর প্রেসক্লাব- ডিপিসির সভাপতি আব্দুল আলীম সাচ্চুর সভাপতিত্বে মানবন্ধনে বক্তব্য দেন- দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এটিএন নিউজের জেলা প্রতিনিধি শরিফুল ইসলাস, এই প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক ভোরের কাগজের উপজেলা প্রতিনিধি এস আর সেলিম, দৌলতপুর প্রেসক্লাব- ডিপিসির সাধারণ সস্পাদক আনন্দ টিভির জেলা প্রতিনিধি ফিরোজ কায়সার, যুগ্ম সস্পাদক এশিয়ান টিভির উপজেলা প্রতিনিধি সোহানুর রহমান শিপন।

দৌলতপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দৈনিক সময়ের কাগজ প্রতিনিধি রনি আহমেদের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন, দৌলতপুর প্রেসক্লাব- ডিপিসির আরেক যুগ্ম সস্পাদক দৈনিক বাংলাদেশের আলোর উপজেলা প্রতিনিধি হেলাল উদ্দিন, দৌলতপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের দপ্তর সম্পাদক আসানুল হক, স্থানীয় অনলাইন নিউজপোর্টাল বাংলায় প্রতিদিন সম্পাদক জিল্লুর রহমান প্রমুখ। মানববন্ধনে প্রধান বক্তা ছিলেন অনলাইন নিউজপোর্টাল দৌলতপুর টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান নির্বাহী তাশরিক সঞ্চয়।

এই মানববন্ধন থেকে সাংবাদিকদের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য একদিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়। বুধবারের মধ্যে মামলাটি প্রত্যাহার করা না হলে আগামী শুক্রবার (১৪ আগস্ট) উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালের পাদদেশে এখানকার সর্বস্তরের সাংবাদিকদের নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালনের ঘোষণা করা হয়। সেখান থেকে পরবর্তী বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমনের উদাসীনতায় ওই কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা ঈদুল আজহার উৎসব ভাতা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হন। এ ঘটনায় কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমনের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ এনে কলেজটির ৫৮ জন শিক্ষক-কর্মচারী স্বাক্ষরিত একটি চিঠি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হয়। ওই চিঠিতে সভাপতির বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের বিস্তর অভিযোগ তুলে ধরা হয়।

এর আগে ওই কলেজের অনিয়ম ও নিয়োগ বাণিজ্যের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কলেজ সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন ও কলেজ অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানের মধ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। একপর্যায়ে চরম ক্ষুব্ধ হন অ্যাডভোকেট রিমন। তিনি অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানকে মোবাইল ফোনে গালাগাল করেন এবং সপ্তাহে একদিন করে পেটানোর হুমকি দেন। পরে ওই ফোনআলাপ ফাঁস করে দেন অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নান।

এর পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি এ অঞ্চলের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজপোর্টাল দৌলতপুর টোয়েন্টিফোরসহ আরো বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে খবর বের হলে কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন সাংবাদিকদের ওপরেও প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। এর জেরে গত কয়েকদিন ধরে স্থানীয় সাংবাদিকদের নানাভাবে শায়েস্তা করার হুমকি দেয়া হচ্ছিল।

অবশেষে খবর প্রকাশের চারদিন পর সোমবার (১০ আগস্ট) কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমনের পক্ষে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (আইসিটি) হয়রানিমূলক মামলা করা হয়। অ্যাডভোকেট রিমনের পক্ষে তার ভাগ্নে ওয়ালিউল আলম শাওন বাদী হয়ে এই মামলাটি করেন।

মামলায় প্রধান সাক্ষী হয়েছেন কলেজ ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন। গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে আইসিটি আইনের ২৪, ২৫, ২৯, ৩১ ও ৩৫ ধারায় দায়ের করা হয়রানিমূলক এই মামলায় দুই সাংবাদিকসহ তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন- দৌলতপুর টোয়েন্টিফোরের সিইও সাংবাদিক তাশরিক সঞ্চয়, কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক প্রতিজ্ঞার বার্তা সম্পাদক নাজমুল হোসেন। মামলাটিতে কলেজ অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানকে প্রধান আসামি করা হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত সাংবাদিকগণ বলেন, উপযুক্ত তথ্য ও প্রমাণ হাতে পাবার পরই সংবাদটি প্রকাশ করা হয়েছে। তাই সাংবাদিকের নামে মামলাটি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত।

দৌলতপুরে সাংবাদিকের নামে আ.লীগ নেতার মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন