শর্ত সাপেক্ষে মার্কেট খোলা রাখা যাবে শেরপুরের জেলা কমিটির সিদ্ধান্ত।

এম এ কাশেম: আজ ১৯ মে মঙ্গলবার শেরপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জেলা কমিটির জরুরী আলোচনা সভা করা হয়েছে। পবিত্র রমজান ও ঈদ-উল-ফিতরকে সামনে রেখে দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য বাজার যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে সরকার কর্তৃক প্রদত্ত শর্তসমূহ পালন সাপেক্ষে খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সরকারের পক্ষ হতে।

কিন্তু শেরপুর জেলায় বিগত কয়েকদিন মার্কেটসমূহ সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায় যে, মার্কেট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগত ক্রেতা/বিক্রেতাদের অধিকাংশ সরকার প্রদত্ত শর্তসমূহ মেনে চলার বিষয়ে অবহেলা প্রদর্শন করছেন। এরূপ অবস্থায় শেরপুরবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনা করে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধকল্পে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক জনাব আনার কলি মাহবুব স্যারের নেতৃত্বে পরিচালিত এ সভায় উপস্থিত ছিলেন শেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য এবং জাতীয় সংসদের মাননীয় হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আতিউর রহমান আতিক, পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম, জেলা সিভিল সার্জন একেএম আনোয়ারুর রউফ, শেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ হুমায়ুন কবির রুমান, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, চেম্বার অব কমার্স এর সভাপতি, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ ।

জেলা প্রশাসক জানান,উক্ত সভায় ব্যবসায়ীদের অনুরোধে আগামী ২২.০৫.২০২০, শুক্রবার পর্যন্ত শর্তসাপেক্ষে মার্কেট খোলা রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়া করোনা রোধকল্পে মার্কেট ও ব্যবসা কেন্দ্র সমূহে বাধ্যতামূলকভাবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা এবং ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরিধান, ৪টার পর মার্কেট খোলা রাখা হলে কঠোর শাস্তি প্রদান, প্রতিটি দোকানে স্বেচ্ছাসেবক এর অবস্থান ইত্যাদি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নিয়মিত অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান।