রামপুরায় কৃষকের পাকা ধান কেটে দিলো ঢাকা মহানগর-উত্তর কৃষক লীগ

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, ষ্টাফ রিপোর্টারঃ করোনাভাইরাসের কারণে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়া কৃষকদের পাশের দাঁড়িয়েছে ঢাকা মহানগর-উত্তর কৃষক লীগ। করোনা পরিস্থিতিতে ধান কাটার শ্রমিক না পাওয়ায় বর্তমানে কৃষক লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরাই এখন কৃষকদের ভরসা। কৃষকের ধান কাটা, বাড়ি নেয়া ও মাড়াই সবই করে দিচ্ছে কৃষক লীগের নেতাকর্মীরা।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষকরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী এবং বাংলাদেশ কৃষক লীগের সুযোগ্য সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ ও সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপির দিক-নির্দেশনায় অসহায় কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা মহানগর-উত্তর কৃষক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মাকসুদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হালিম খান’সহ ঢাকা মহানগর-উত্তর কৃষক লীগের নেতা কর্মীরা।

ঢাকা মহানগর-উত্তর রামপুরা থানা কৃষক লীগের প্রথম মহিলা সভাপতি আবেদ আহমেদ রুমি ও সাধারণ সম্পাদক রানা আফ্রিদির নেতৃত্বে কৃষক লীগের নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে রামপুরা তৃমহোনী গ্রামের কৃষক আব্দুল আওয়াল এর মাঠ থেকে ধান কেটে বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছেন। কৃষক আব্দুল আওয়াল বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে ধান কাটার জন্য কোনো শ্রমিক পাচ্ছিলাম না।

ধান নিয়ে বিপদে আছি শুনে ঢাকা মহানগর-উত্তর রামপুরা থানা কৃষক লীগের মহিলা সভাপতি আবেদ আহমেদ রুমি এবং সাধারণ সম্পাদক রানা আফ্রিদি কৃষক লীগের দলীয় কর্মীদের নিয়ে এসে আমার জমির ধান কেটে বাড়ি পর্যন্ত পৌছে দিয়েছেন। সবাই যদি এভাবে অসহায় কৃষকদের পাশে দাঁড়ায় তাহলে কৃষকেরা ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে। এমন কঠিন সময়ে কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য কৃষক লীগের নেতা-কর্মীদের অভিনন্দন জানান।

এসময় ঢাকা মহানগর-উত্তর রামপুরা থানা কৃষক লীগের মহিলা সভাপতি আবেদ আহমেদ রুমির পাকা বোরো ধান জমিতে না রেখে দ্রুত কেটে তোলার জন্য কৃষক ভাইদের অনুরোধ করেন। পাশাপাশি করোনা ভাইরাস থেকে দূরে থাকতে সতর্কভাবে চলাচল ও সাবান দিয়ে হাত ধোয়া এবং বাইরে গেলে মুখে মাস্ক ব্যবহার করার জন্য সকলের অনুরোধ করেন।

ঢাকা মহানগর-উত্তর কৃষক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মাকসুদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হালিম খান, কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে বলেন, আমাদের প্রিয় সংগঠন কৃষক লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা কৃষকদের ধান কেটে দিচ্ছে। শুধু ধান কাটা নয় কৃষক লীগ সকল সময় কৃষকের সুখে-দুখে প্রতিটি ক্ষেত্রে পাশে ছিল, পাশে আছে এবং পাশে থাকবে ইনশাআল্লাহ।