রাণীশংকৈলের সড়কগুলো নিস্তব্ধ নগরে পরিণত হয়েছে।


ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি: সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এমন অবস্থায় বাংলাদেশের সরকার করোনা ঠেকাতে মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী সেই সাথে বাড়ছে দেশের আতঙ্ক ইতিমধ্যে বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েছে বেশ কয়েকজন মানুষ । ঠিক এমনি আতঙ্কে সরকারের আইন শৃঙ্খলা বজায় রেখে ধীরে ধীরে ফাঁকা হতে শুরু করেছে উত্তর বঙ্গের জেলা ও উপজেলা গুলি ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলের সড়কগুলো। কমে আসছে সড়কে মানুষের চলাফেরা। এতে করে বিপাকে পড়ছেন দিনমজুর। কি করবেন এমনি চিন্তায় যেন মাথায় হাত তাদের।

২৯ মার্চ রাণীশংকৈল বিভিন্ন শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন জনসমাগম এলাকাগুলো নির্জন হয়ে গেছে। অধিকাংশ রাস্তাই যেন প্রায় জনশূন্য। দাঁড়িয়ে রয়েছে গুটি কয়েক রিকশাচালক। বন্ধ রয়েছে সকল দোকানপাট। দেখে যেন মনে হচ্ছে মানুষ নিজেই নিজেদের করেছেন লকডাউন। অপরদিকে এই ভাইরাসের সংক্রামণ এড়াতে রাণীশংকৈলে জোরদার করা হয়েছে সেনাবাহিনীর টহল।

বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করার পাশাপাশি একসঙ্গে একাধিক ব্যক্তি চলাচল, বাজার মনিটরিং সহ সকল দিকেই নজর রাখছেন তারা রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহি অফিসার মৌসুমী আফ্রিদা ও রাণীশংকৈল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মান্নান । শহরের চৌরাস্তা মোড়ে কথা হয় রিকশা চালক জহিরের সাথে সকলকে ঘরে থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে আপনি কেন বাহিরে এমনি প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রিকাশা না চালাইলে কিভাবে চলবো। খাবার পাবো কিভাবে।

আমরা দিনমজুর দিনে আনি দিনে খাই। আজ রাস্তায় লোক নেই, তাই আমাদের ভাড়াও নেই তেমন। কিভাবে কি করবো একমাত্র উপর আল্লাহ যানে। এ বিষয়ে রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহি অফিসার মৌসুমী আফ্রিদা জানান মানুষ অনেক সচেতন হয়ে গেছে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ এমন অবস্থায় আর কিছু দিন থাকলে আমার করোনা ঠেকাতে পারবো ইনশাআল্লাহ।