ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের বোনাসের টাকায় ঈদে দরিদ্র শিশুদের উপহার দিলেন :পুলিশ সুপার

গোলাম কিবরিয়া পলাশ, ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি: ময়মনসিংহ বিভাগীয় নগরীতে রাতের আধারে ভাসমান অবস্থায় রাস্তায় থাকা ক্ষুধার্ত মানুষেদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করে আসছে প্রতিনিয়ত ডিবি পুলিশ। বিভাগীয় শহর ছাড়াও জেলা পুলিশ বিভিন্ন উপজেলায় পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় অসহায়দের খাদ্য বিতরণ করে আসছে। এরই অংশ হিসাবে শনিবার ত্রিশাল পৌরসভার আব্দুল খালেক জামে মসজিদের সামনে দেড় শতাধিক অসহায়, বেকার, দুস্থ, দিনমজুর ও কর্মহীন মানুষদের মাঝে খাদ্য সহায়তা বিতরণ করা হয়। ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামান, পিপিএম-সেবা পক্ষে এই সব খাদ্য সহায়তা বিতরণ কাজ উদ্বোধন করেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি শাহ কামাল আকন্দ।

ওসি শাহ কামাল আকন্দ আরো জানান, আসছে ঈদুল ফিতরে জেলা পুলিশের কেনাকাটায় অর্থ সাশ্রয় করে এই খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি ছুটিতে সারাদেশের মত বিভাগীয় নগরী ময়মনসিংহের বিভিন্ন লোকজন কর্মহীন হয়ে পড়ে। এছাড়া সকল যানবাহন ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় দিন দিন বেকারত্বের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এ সব বেকার ও অসহায়দের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে প্রতিনিয়ত খাদ্য সহায়তা বিতরণ করে আসছে বিভিন্ন সংগঠন।

পাশাপাশি ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার মোহা: আহমার উজ্জামান, পিপিএম-সেবা মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে অসহায়, হতদরিদ্র, দিনমজুর, বেকার, ও কর্মহীন মানুষদের খাদ্য সহায়তা দিয়ে আসছে। জেলা পুলিশ ব্যক্তিগত ও নিজস্ব অর্থায়নে এই সব খাদ্য সহায়তা বিতরণ করে আসছে। এরই মাঝে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কর্মহীন, দিনমজুর, হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।

এ সময় ময়মনসিংহ সংবাদপত্র শিল্প মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও ময়মনসিংহ টেলিভিশন রিপোর্টাস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক আ ন ম ফারুক, মেডিকেল শিার্থী ফাউজিয়া ফারাহ নিসা সহ জেলা পুলিশের অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে খাদ্য সহায়তা বিতরণশেষে আ ন ম ফারুক খাদ্য সহায়তা নিতে আসা দুই শতাধিত শিশু কিশোরদের মাঝে ঘুড়ি বিতরণ করেন। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে অঘোষিত লকডাউনে শিশু কিশোররা যাতে ঘুড়ি উড়ানোর মধ্য দিয়ে স্বাচ্ছন্দে নিজ এলাকায় অবস্থান করে সেই লক্ষ নিয়েই তিনি ঘুড়ি বিতরণ করেন বলে আ নম ফারুক জানান।