“মানুষ মানুষের জন্য” এর প্রমাণিত  করলেন পুলিশ অফিসার  একে আজাদ।

মানব সেবাই পুলিশের ধর্ম এর প্রমাণ দিলেন পুলিশ অফিসার একে আজাদ।

বিল্লাল হোসেন, পলাশ, নরসিংদীবহুল প্রচলিত একটি কথা, “মানুষ মানুষের জন্য” এর প্রমাণিত  করলেন পুলিশ অফিসার একে আজাদ। গতকাল বুধবার তিনি একটি ‘লাশ’-এর সেবা করে তার জ্ঞান ফিরিয়ে রীতিমতো আলোচনায় এই পুলিশ অফিসার। কেউ কেউ মানবতার সেবক বলছেন তাকে।

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার পলাশ বাজার সংলগ্ন ব্রিজের পাশে দুপুর আনুমানিক ২টা কাফনে মোড়ানো একটি লাশ পড়ে আছে। স্থানীয়রা লাশটি দেখে ৯৯৯-এ কল করে পলাশ থানায় বিষয়টি জানায়। খবর পেয়ে পলাশ থানার ওসি শেখ মো. নাছির উদ্দিন তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখতে দায়িত্ব দেন সেকেন্ড অফিসার একে আজাদকে।

তিনি দায়িত্ব পালনে মরিয়া হয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান। কাফনের ভাঁজ খুলে দেখেন, লাশের ঠোঁট নড়ছে। দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য গাড়ি খুঁজতে থাকেন। সেখানে কোনো গাড়ি পাওয়া গেল না। তবে রাস্তার পাশেই একটি ভ্যানগাড়ি থাকলেও । ভ্যানগাড়ির চালককে আশপাশে পাওয়া গেল না। উপায়ন্তর না দেখে নিজেই ভ্যানচালক হয়ে যান তিনি ।

এদিকে লোকটির শরীর থেকে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ বের হতে থাকে। পরে তিনি পলাশ বাজার থেকে একটি লুঙ্গি কিনে তাকে পরিয়ে দেন এবং কাফনের কাপড় খুলে ফেলেন। লোকটিকে নিয়ে পলাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। তাকে কোলে করে হাসপাতালের দোতালায় ওঠান। একে আজাদ জানান, হাসপাতালে নেওয়ার পর কোনো ডাক্তার লোকটির গায়ের দুর্গন্ধে তার কাছে আসতে চাচ্ছিলেন না।

পরে আমি গামছা দিয়ে লোকটির সারা শরীর মুছে দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করাই। চিকিৎসা দেওয়ার পর সন্ধ্যার দিকে তার জ্ঞান ফেরে। তবে লোকটি কোনো কিছুই বলতে পারে না।