ভ্রাম্যমান আদালতের জব্দকৃত মাংস দিলেন এতিম খানায়।


আশিকুর রহমান রনি: (৭ ফেব্রয়ারী) সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া  আশুগঞ্জ উপজেলার আড়াইসিধা বাজারে এ অভিযান চালানো হয়। এ অভিযানে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার নেতৃত্ব দেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার এসময় ফ্রিজে অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় পুরাতন মাংস রাখার জন্য মাংস বিক্রেতা সেলিম মিয়াকে ১০ হাজার টাকা ও ট্রেড লাইসেন্স না থাকার জন্য আগুর মিয়াকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এসময় ২০ কেজি মাংস জব্দ করেন।

তিনি বলেন, জব্দকৃত মাংসগুলো স্থানীয় একটি এতিমখানায় দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন প্রশ্ন থাকে যে এই ভ্রামান আদালত পরিচালনায় জব্দকৃত (অপরিচ্ছন্ন) মাংস এতিম খানায় কেন দেওয়া হল। মাংস অপরিচ্ছন্নতার কারণে জব্দ করা হলে কোন রকম পরীক্ষা ছাড়া এতিম বাচ্চা দের কেনো খাওয়ানো হল। নিয়ম অনযায়ী ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় জব্দকৃত মালামাল ধংস করা হয়।

আর সেটা না করে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার এর একক সিদ্বান্ত কারণে আশুগঞ্জের সর্বত্র এখন নিন্দার ঝড় । এব্যাপারে আশুগঞ্জ উপজেলারর স্বাস্থ অফিসার ডাঃ নুপরু সাহা বলেন জব্দকৃত মাংস ধ্বংস করা উচিত ছিল, তবে কেন করা হলনা তা আমার জানানেই

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে, মোঃ আশিকুর রহমান রনি।