বিয়ের ৩ দিন পর নববধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

ছবি: নবধূর লাশ উদ্ধার ।
ছবি: নববধূর লাশ ।

জিল্লুর রহমান: কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামের মোছাঃ শিউলি খাতুনের মেয়ে মোছাঃ পিংকি খাতুন (১৮) মঙ্গলবার সকাল ১১ টার সময় তার মায়ের বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

এ বিষয়ে এলাকাবাসী “বাংলায় প্রতিদিন” কে জানায়, মেয়েটির ৩ দিন আগে বিয়ে হয়েছে, একেই গ্রামের মোঃ শামসের আলীর ছেলে মোঃ মদুর সাথে। কিন্তু, কেন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে আমরা কিছু জানি না। তবে নববধূর স্বামী মদুর পরিবারের সূত্রে জানা যায়। ৩ দিন আগে বিয়ে হয়েছে ঠিক, পরেরদিন সকালে  নববধু – পিংকি খাতুন কাউকে কিছু না জানিয়ে তার মায়ের  বাড়িতে একায় চলে য়ায, পরে আমরা জানতে পারি সে নাকি আর স্বামীর সংসার করবেনা, লেখাপড়া করবে।

এ বিষয়ে বনবধূ পিংকি খাতুনের মা জানান আমার স্বামী অনেক আগেই মারা গেছে, আমার মায়ের কাছে আমার মেয়ে কে রেখে আমি ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করি, দশ – পনেরো দিন হলো আমি গ্রামের বাড়িতে এসে আমার মেয়ের  বিয়ে দিয়েছি। কিন্তু মেয়ে আর স্বামী সংসার করবেনা এখন লেখাপড়া করবে বলে আমাকে জানিয়েছে। এ ব্যাপারে  আমার মেয়ে জামাই  মোঃ মদুর সাথে কথা বলেছি আমার মেয়ে জামাই মদু বলেছে ঠিক আছে পিংকি পড়াশোনা করুক আমার কোন আপত্তি নাই।

পিংকির মা আরো জানান, আজ সকালে আমাদের এলাকায় একজন মারা গেছে আমি লাশ দেখতে গিয়েছিলাম এসে দেখি আমার মেয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছে। এ বিষয়ে দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম আরিফুর রহমান জানান আমরা খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করি ।