বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ এর ভাগিনা সভাপতি পদে আলোচনার শীর্ষে।

ছবি: বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদার।

মো: ইব্রাহিম হোসেন, ঢাকা প্রতিনিধি: রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমিটিকে সামনে রেখে সর্বস্তরের জনগণের কাছে পছন্দ ও আস্থাভাজন নেতা হিসেবে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম নেতা শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদের ভাগিনা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদার।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদার ৩১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং অবসর প্রাপ্ত ব্যাংকার। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম নেতা শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর বন্দী অবস্থায় ঘাতকের বুলেটে নিহত হবার পর জীবনের ঝুকি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তার লাশ গ্রহণ করে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদার।

৩১ নং ওয়ার্ডের তৃনমুলের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা এবাবের কমিটিতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদারকে ৩১ নং ওয়ার্ডে সভাপতি হিসেবে দেখতে চায়। কারণ, তিনি যেভাবে তৃণমুলের নেতাকর্মীদের বিপদে এগিয়ে আসেন এবং যে কোন সমস্যায় তাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। আমরা চাই এবার দল তাকে মূল্যায়ন করে আমাদের আস্থা, বিশ্বাস ও সাহসকে মূল্যায়ন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে পথ দেখাবে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ তালুকদার বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে লালন করে জীবন বাজি রেখে ১৯৭১ সালে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় যুদ্ধ করেছি এবং দলীয় সকল নির্দেশনা পালন করে এসেছি। তিনি আরো বলেন, আমি আমার মৃত্যুকে হাতে নিয়েই, বলতে গেলে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেই ১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে আমার মামা বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম নেতা শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদের লাশ গ্রহণ করি এবং সকল বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে জানাজার নামাজ আদায় করে লাশ দাফন করি। দল আমাকে যেখানেই মূল্যায়ন করবেন বা দায়িত্ব দিবেন তা জীবনের বিনিময়ে হলেও রক্ষা করবো ইনশাআল্লাহ।