প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য আশুগঞ্জে যুবলীগ নেতার দাপটে পুকুর খনন


মোঃ আশিকুর রহমান রনি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে দক্ষিণের ত্রাশ হিসাবে খ্যাত শাহীন আলম বকশী ও তার পোষ্য কেডার বাহিনীর তান্ডবে দিসে হারা মানুষ। ক্ষমতার দাপটে মাদক ব্যবসা, লগ্নী ও কৃষকদের জিম্মি করে অবৈধ বালুর ব্যবসা পরিচালনা নেপথ্যে কারিগর এই যুবলীগ নেতা আশুগঞ্জ শাখার একাংশের যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শাহিন আলম বকশী। তার বিরুদ্ধে ধারা বাহিক প্রতিবেদনে আজ প্রথম পর্ব।

ফসলী জমি নষ্ট করে পুকুর, ডোবা কিংবা বসত বাড়ী নয় এরকম নির্দেশ মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এই নির্দেশ অপেক্ষা করে আশুগঞ্জে ক্ষমতার দাপটে চলছে দেদারছে ড্রেজার ও বেকু দিয়ে পুকুর খনন। যার ফলে কৃষি জমি কমে আগামী দিনের দেখা দিতে পারে দেশে খাদ্য গারতি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন প্রতিকারের ব্যবস্থা না নেওয়ায় অসহায় মানুষের ক্ষোভ প্রকাশ।

সরেজমিনে সংশ্লিষ্ট এলাকা ঘোরে স্থানীয়ভাবে গিয়ে দেখা যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার বায়েক গ্রামে যুবলীগের একাশেংর যুগ্ম আহবায়ক শাহীন আলম বকশী ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর নেত্রীত্বে প্রায় ৩০ বিঘা ফসলি জমিতে বোমা মেশিন ড্রেজার দিয়ে ও বেকু দিয়ে মাটি উত্তোলন করে নতুন পুকুর খনন করছে। ড্রজার দিয়ে মাটি উত্তোলনের ফলে আশে পাশের ফসলি জমি ভবিষ্যতে ভাঙ্গনের কবলে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে এবং বিভিন্ন জায়গা দিয়ে সরকারী রাস্তা কেটে পাইপ বসিয়ে এই মাটি বিক্রি করা হচ্ছে অন্যত্র।

যা প্রশাসনের লোকজন দেখে ও না দেখার বান করছে। কয়েকজন কৃষকের সাথে কথা বলে জানা যায় এ নেতা তার একক প্রভাব দেখিয়ে পুকুর থেকে মাটি উত্তোলন করে অন্যের ফসলী জমি ভরাট করছে। আর এই ড্রেজারের পাইপ নেওয়া হয়েছে সরকারী বিভিন্ন রাস্তা কেটে।

সরকারী নির্দেশনা মতে কোন জমিতে পুকুর খনন করতে চাইলে সংশ্নিষ্ট কৃষি অফিসে আবেদন করে মাননীয় জেলা প্রশাসকের অনুমোতিক্রমে পুকুর খনন করা যেতে পারে। এব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার জাহাঙ্গীর আলমের সাথে কথা বললে তিনি জানান পুকুর খনন সংশ্লিষ্ট বিষয়টি আমি জানি না। তবে খোঁজ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সারের সঙ্গে কথা বলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।