প্রতিমা ভাংচুর পুরোহিতের প্রাণ নাশের হুমকি দশমিনায় সংবাদ সম্মেলন।

দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর দশমিনায় প্রতিমা ভাংচুর ঘটনার জের ধরে পুরোহিত পরিবারকে হত্যার হুমকি ঘটনায় শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় জাফরাবাদ গ্রামের নিজ বাড়ীতে সংবাদ সম্মেলন করে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, প্রিয়লাল চক্রবর্তী। লিখিত বক্তব্যে প্রিয়লাল চক্রবর্তীর অভিযোগ, চলতি মাসের ৮এপ্রিল দিবাগত রাতে তার বসত ঘরে সিঁধ কেঁটে মূল্যবান দলিল,নগদটাকা চুরি করে ও বাড়ীর সামনের সত্য নারায়ন ও কালী মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর করে।

এছাড়াও বাড়ীর সামনে গোড়াচাঁদ গাইন বাড়ির কালী মন্দিরে ঢুকে কালি প্রতিমা ভাংচুর করে। এ ঘটনায় প্রিয়লাল চক্রবর্তী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে দশমিনা থানায় (নং-০৫, তারিখ- ১০/০৪/২০২০) মামলা দায়ের করেন। মামলার পরে বুধবার থেকে বিভিন্ন মাধমে মামলা তুলে নিতে হুমকি আসতে থাকে ও বৃহস্পতিবার স্থানীয় আজিজুর রহমান মাষ্টার মামলা তুলে না নিলে প্রিয়লাল চক্রবর্তীকে হত্যার হুমকি প্রদর্শণ করেন। পুরোহতি পরিবার নিরাপত্তার জন্য সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রসাশনের সজাগ দৃষ্টি কামনা করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ব্রাক্ষ্ণণ সংসদের কেন্দ্রিয় নবম পন্ডিত ও ওই মন্দিরের বার্ষিক পুরোহিত সুবোধ রতন চক্রবর্তী, গলাচিপা উপজেলা ব্রম্মণ সংসদের সহসভাপতি জাদব রঞ্জন চক্রবর্তী, দশমিনা উপজেলা ব্রম্মণ সংসদের সভাপতি শান্তি রঞ্জন চক্রবর্তী, সাধারণ সম্পাদক রঙ্গলাল চক্রবর্তী প্রমূখ। স্থানীয় সংবাদকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে পন্ডিত জাদব রঞ্জণ চক্রবর্তী জানান, এ ঘটনার পর স্থানীয় মরহুম হাজী আজীজুর রহমানের ছেলে মোঃ গোলাম মোস্তফা ১৫ এপ্রিল দশমিনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে।

অবসরপ্রাপ্ত প্রাঃ শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা সংবাদ সম্মেলনে দাবী করেন, পুরোহিত বাড়ীর প্রতিমা ভাংচুর ঘটনায় তার সংশ্লস্টিতা নেই। মামলার বাদী প্রিয়লাল চক্রবর্তীও তাকে আসামী করেনি। কিন্তু মোঃ গোলাম মোস্তফা মাস্টার কর্তৃক হত্যার হুমকি ও আগাম সংবাদ সম্মেলন করার বিষয়টি প্রশাসনের খতিয়ে দেখা দরকার। এ ঘটনায় অবসর শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা সংবাদ সম্মেলন ও হত্যার হুমকি বিষয়ে এ প্রতিনিধিকে বলেন, হত্যার হুমকি দেই নাই। সংবাদ সম্মেলন করেছি যাহাতে এ মামলায় আমাকে জড়িত করা না হয়।