পাগলামি ছাড়া অর্জন আর ধ্বংস আপনি কিছুই করতে পারবেন না, ভ্যদ্বলোক হয় নিরামিষ

মো: ইব্রাহিম হোসেন, ষ্টাফ রিপোর্টার: সৃষ্টির বিস্ময় এই পৃথিবী আমাদের দখলে। প্রতিদিন নতুন নতুন আবিস্কার হচ্ছে মানব সেবার ও ধ্বংসের জন্য, এই কাজ দুইটি আমরাই করি, কেনো করি এর উত্তর আজও আমাদের জানা নাই। মন চাইলে গাড়ীতে ঢিল মারি, মন চাইলেই পেট্রোল মেরে আগুন। করোনার ভাইরাস থেকে জনগণকে সহায়তার লহ্মে রাস্তায় রাস্তায় খাদ্য সহায়তা।

পুরো জাতি হোম কোয়েরেন্টেনে, রাজনৈতিক পাগলামি তখন জিইয়ের রাখতে হয়েছে মানব সেবার জন্যে। আমরা পাগল না হলে বুলেটের সামনে নুর হোসেন আত্নহুতি দিতে পারে গনতন্ত্রের জন্য। জাতির জনক সুদীর্ঘকাল কারা জীবন ও ফাসী মঞ্চ গ্রহন করতেও দ্বিধা করেন নাই। শেখ হাসিনাকে শেষ অবধি রাজনৈতিক হতেই হলো। আজ আমি গর্ব করে বলতে পারি শেখ হাসিনার মাঝে দেশ ও জাতির জন্য পাগলামি আছে।

ভ্যদ্বলোকের রাজনীতি হয় না, বিশ্বাস দিয়ে অর্জন হবে না, অর্জনের জন্য কর্মের প্রয়োজন। একটু পেছনে ফিরতে হবে ১৯৯১ নির্বাচনে প্রশাসনকে বিশ্বাস করা হয়েছিল, গনতন্ত্রের নমুনা দেখিয়েছে শেখ হাসিনাকে। ১৯৯৬ সালে ভালো মানুষ হ্ম্যত বিচারপতি সাহাবুদ্দিনকে রাষ্ট্রপতি করা হয়েছিল, ২০০১ বিনাবাধায় ত্বত্ত্বাবদায়ক সরকারের কাছে হ্মমতা হস্তান্তর করেছিল।

ভ্যদ্বলোকের রাজনীতি দেশের মানুষ প্রতহ্ম করেছে। রাজনীতি কে রাজনীতি দিয়ে জয় করতে হয়, বুজতে সময় লাগলেও শেখ হাসিনা আজ পরিপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব। মঈনুদ্দিন খান বাদলের ভাষা