নোয়াখালীতে করোনা  প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

আবুল হাছনাত বাবুল নোয়াখালী: নোয়াখালী জেলার করোনা পরিস্থিতি ও করণীয় নিয়ে জেলা প্রতিরোধ কমিটির এক জরুরী সভা  ও মৃত্যু বরনকারী সাংবাদিক, পুলিশ সদস্যদের অনুদান প্রধান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুপুরে জেলা প্রশাসনের সভাকক্ষে কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক তন্ময় দাস’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সর্ম্পকৃত স্থায়ী কমিটির সদস্য ও  নোয়াখালী-৪ আসনের সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরী।

সভায় সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরী নোয়াখালীতে ১০টি আইসিইউ বেড স্থাপনের সিদ্বান্ত চূড়ান্ত হওয়া সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানান। এছাড়াও ৩১ মে থেকে সাধারণ ছুটি বাতিল ঘোষণা হলেও জেলায় সংক্রমণের অবস্থার উপর নির্ভর করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দোকানপাঠ বা অফিস আদালতে প্রত্যেকে যেন কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে এবং বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য কঠোর হতে প্রশাসনকে নির্দেশ দেন।

এ সময় জেলার আব্দুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত ল্যাব দুটি গত কয়েকদিন বিদ্যুতের সমস্যার কারণে করোনা পরীক্ষার ব্যাঘাত ঘটায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং বিদ্যুৎ বিভাগকে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে নির্দেশনা দেন।

পরে একরামুল করিম চৌধুরী ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে করোনায় মৃত সাত পুলিশ সদস্যের প্রত্যেকের জন্য ৫০হাজার করে সাড়ে তিন লাখ এবং দুই সাংবাদিকের জন্য এক লাখ টাকা অনুদান দেওয়া হয়। এ ছাড়া  নোয়াখালীর সাংবাদিকদের চিকিৎসা তহবিলের জন্য আরো ২ লাখ টাকাসহ মোট সাড়ে ৬লক্ষ টাকা অনুদান  দেন। এর আগেও সারাদেশে করোনায় মৃত্যুবরণকারী প্রত্যেক চিকিৎসক, সাংবাদিক ও পুলিশ সদস্যকে একরামুল করিম চৌধুরী ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে আর্থক অনুদান দেয়া হয়েছে।

এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম সামছুদ্দিন জেহান,  জেলা স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. ফজলে এলাহী খান ও সাধারণ সম্পাদক ডা. মাহাবুবুর রহমান প্রমূখ।