ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গী ডিবি পুলিশের পরিচয়ে আটক ৪।

মাহাবুব আলম ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ব্যবসায়ীদের মারপিট করে টাকা লুটের সময় ৪ যুবককে আটক করেছে বালিয়াডাঙ্গী পুলিশ। আটককৃ ব্যাক্তিরা হলেন বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার শহরের রাহাত (১৯) সুমন (২৮) গ্রীনলাইন পাড়ার আবু সালেহ(২৪) ও গোয়ালগাড়ি গ্রামের সবুর (২২) গত ১৩ এপ্রিল সোমবার বিকেল ৩ টার দিকে উপজেলার লাহিড়ী হাটে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি হাবিবুল হক প্রধান।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে ওসি হাবিবুল হক প্রধান বলেন, জেলা প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময় বিকেল ৫টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে হবে। সে সময় অনুযায়ী লাহিড়ী হাটে ব্যবসায়ীরা দোকান করছিলেন। এ বিষয়ে বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি হাবিবুল হক বলেন বিকেল ৩টার দিকে ৭-৮টি মোটরসাইকেলে করে একদল উশৃঙ্খল যুবক লাহিড়ী হাটে প্রবেশ করে এবং তারা নিজেদের ডিবি পুলিশ দাবি করে ব্যবসায়ীদের দোকান বন্ধ করতে বলে।

কিন্তু ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ করতে না চাইলে ওই উশৃঙ্খল যুবকরা লাঠিসোটা দিয়ে হাটের ব্যবসায়ীদের বেধরক মারপিট শুরু করে। এতে ব্যবসায়ীরা দোকানপাট ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। এসময় ওই যুবকরা ব্যবসায়ীদের দোকানের ভেতরে রাখা টাকা লুট করে নিয়ে পালানোর সময় স্থানীয় লোকজন রাহাত, সুমন, আবু সালেক ও সবুজ মিঞাকে আটক করে পুলিশকে খবর দেন । খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই ৪ জন যুবককে আটক করে থানায় আনা হয়।

এ দিকে ঘটনার পর ঘটনাস্থলে শত শত মানুষ ছুটে আসে। জনসমুদ্রে পরিণত হয় লাহিড়ীহাট। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। লাহিড়ীহাটের ব্যবসায়ী সাবুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, ৭টি মোটরসাইকেলে দুইজন করে ১৪জন যুবক লাঠিসোটা নিয়ে আকষ্মিকভাবে বাজারে এসে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ব্যবসায়ীদের চাপ প্রয়োগ করে দোকান বন্ধ করতে। রাজি না হলে তারা ব্যবসায়ীদের বেধরক পেটায় এবং তারা অনেক ব্যবসায়ীর দোকানে থাকা টাকা লুট করে নিয়ে পালানোর সময় স্থানীয়দের সহায়তায় ৪জনকে আটক করা হয় এবং অন্যরা পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী অফিসার খায়রুল আলম সুমন বলেন, স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে শুনেছি ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ১০ থেকে ১৪ জন যুবক ব্যবসায়ীদের চাপ প্রয়োগ করে দোকান বন্ধ করার জন্য। এতে ব্যবসায়ীরা রাজি না হলে ওই যুবকরা ব্যবাসায়ীদের মারপিট করে টাকা লুট করে পালানোর সময় স্থানীয় লোকজন ৪জনকে আটক করে পুলিশে দেয়।

তিনি বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা লকডাউন করা হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমন না ছাড়ায় এজন্য আমি, পুলিশ ও সেনাবাহিনী নিয়মিত ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষদের সাথে ভাল আচরনের মাধ্যমে বোঝানোর চেষ্টা করছি, সেখানে এ ধরনের ঘটনা আসলেই দু:খজনক। আটক যুবকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি হাবিবুল হক প্রধান। শহরের এবং ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন তিনি ।