ঝাঁটকা আহরন থেকে বিরত জেলে ও কর্মহীন ১২৭৮ জনকে খাদ্য সহায়তা প্রদান

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার আমতলী উপজেলার আমতলী সদর ইউনিয়ন ও গুলিশাখালী ইউনিয়নের ঝাটকা ইলিশ আহরন থেকে বিরত ৭২৩ জেলেকে ও করোনা মহামারীতে কর্মহীন হয়ে পড়া কুকুয়া ইউনিয়নের ৫৫৫ জন হতদরিদ্র কে খাদ্যসহায়তা প্রদান করা হয়েছে। জানা গেছে. উপজেলার গুলিশাখালী ও আমতলী সদর ইউনিয়নের ৭২৩ জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল প্রদান করা হয়েছে। আর মহামারী করোনাভাইরাসে কুকুয়া ইউপির কর্মহীন হয়ে পড়া ৫৫৫জন হতদরিদ্রকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে।

বুধবার সকাল ১১ টার সময় আমতলী সদর ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে ভবনে বসে ২৯০ জন জেলে, দুপুর ১২ টায় গুলিশাখালী  ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে ভবনে ৪৩৩ জন জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল প্রদান করা
হয়েছে। দুপুর ১ টায় কুকুয়া ইউনিয়নের কুকুয়া ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে ভবনে বসে ৫৫৫ জন হতদরিদ্র কর্মহীনকে ১ কেজি করে চাল খাদ্যসহায়তা প্রদান করা হয়। খাদ্যসহায়তা বিতরন উদ্ভোধন করেন আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এসএমএন জামিউল হিকমা, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্মকর্তা, আমতলী সদর ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি মো. মোতাহার উদ্দিন মৃধা, কুকুয়া ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামলীগ নেতা মো. বোরহান উদ্দিন আহমেদ মাসুম তালুকদার, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসার আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তাসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন মুঠোফোনে বলেন, ঝাটকা আহরন থেকে বিরত আমতলী সদর ইউপির ২৯০ জেলে ও গুলিশাখালী ইউপির ঝাটকা আহরন থেকে বিরত ৪৩৩ জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল এবং কুকুয়া , ইউনিয়নের করোনায় হতদরিদ্র কর্মহীন ৫৫৫ জনকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেয়া মানবিক খাদ্য সহায়তার ১০ কেজি করে চাল প্রদান করা হয়েছে।