চিলাহাটি থেকে খুলনা পর্যন্ত চালু হওয়া লাগেজ ট্রেন ব্যবসায়ীদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

রেজা মাহমুদ,নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর থেকে খুলানা পর্যন্ত ্য়ঁড়ঃ;চিলাহাটি পার্সেল স্পেশাল খুলনা৩৯; নামে পন্যবাহী একটি লাগেজ ট্রেন চালু হওয়ায় ব্যবসায়ীদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। গত ১৫, মে ডোমার উপজেলার চিলাহাটি স্টেশন থেকে খুলানার উদ্দেশে ছেড়ে যায় ট্রেনটি। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে সুত্র হতে জানা যায়, ১৪ মে সকাল ৯ টায় খুলনা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনিটি চিলাহাটিতে এসে পৌছায় রাত ৮ টা ৪০ মিনিটে। পরদিন সকাল ৯ টায় খুলনার উদ্দেশে যাত্রা করে।

ট্রেনটি ডোমার, নীলফামারী, সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, ফুলবাড়ি, বিরামপুর, হিলি, পাঁচবিবি, জয়পুরহাট, জামালগঞ্জ,  আক্কেলপুর, তিলকপুর, শান্তাহার, আহসানগঞ্জ, নলডাঙ্গা, নাটোর, আব্দুলপুর, ঈশ্বরদী, ভেড়ামারা, পোড়াদহ, আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা, দর্শনা, আনছারবাড়িয়া, সাফদারপুর, কোটচাদপুর, যশোর, নওয়াপাড়া, দৌলতপুর স্টেশনে যাত্রাবিরতি দিয়ে খুলনার উদ্দেশ্যে চলাচল করছে।

একই সাথে যেসব স্টেশনে যাত্রা বিরতি না থাকলেও পরিবহনযোগ্য মালামাল থাকলে সংশ্লিষ্ট স্টেশন মাষ্টার আগেই জানালে সেখান থেকে যাত্রা বিরতি দেওয়া হচ্ছে।
যাত্রার দিন থেকেই ট্রেনটি মালামাল পরিবহনে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের মাঝে। প্রথম দিন চিলাহাটি থেকে বিভিন্ন ধরনের ৩৪ মেট্রিকটন ৮০ কেজি, ডোমার থেকে ২৬ মেট্রিকটন ৬০ কেজি, নীলফামারী থেকে ৭০ মেট্রিকটন এবং সৈয়দপুর থেকে ১৯ মেট্রিকটন ৬০ কেজি বিভিন্ন ধরনের পন্য ও ৩০ বস্তা সাইকেলের যন্ত্রপাতি পরিবহন করেন ব্যবসায়ীরা।

এসব পন্য খুলনা, যশোর, আব্দুলপুর, দর্শনা, দৌলতপুর ও চুয়াডাঙ্গা পৌছে দেওয়া
হয়। সৈয়দপুর বনিক সমিতির সভাপতি মো. ইদ্রিস আলী বলেন, প্রতিদিন লাগেজ ট্রেনটি
চলাচল করলে পন্য পরিবহনে উভয় পাড়ের ব্যবসায়ীরা উপকৃত হবেন। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সহকারী চিপ অপারেটিং সুপারেনডেন্ট আব্দুল আউয়াল বলেন, বর্তমান করোনা পিরিস্থিতি বিবেচনায় পন্যবাহী ওই ট্রেনটি চালু কারা হয়েছে। এতে আছে ৫ টি লাগেজ ও ১ টি ব্রেকভ্যান। প্রয়োজনে চাহিদা অনুসারে আরো লাগেজভ্যান যুক্ত করা হবে।