গোয়ালন্দে দীর্ঘ এক মাস পর বি এন পি‘র নেতা শেখ নিজাম জামিনে মুক্ত হলেন

বিএনপি নেতৃবৃন্দ এবং গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হয়ে শেখ মো. নিজাম কে ফুলের মালা পরিয়ে বরণ করে নেন।

মোজাম্মেলহক (লালটু) ,রাজবাড়ী প্রতিনিধি: রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলায় রাষ্ট্রীয় কাজে বাধাপ্রদানে মামলায় দীর্ঘ এক মাস পর হাইকোটের মাধ্যমে জামিনে মুক্ত হলেন গোয়ালন্দের পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা শেখ মো. নিজাম উদ্দিন। ২০১৮ সালে গোয়ালন্দ পদ্মার মোড়ে পুলিশ বাদী এই মামলা করেন। সেই মামলায় উল্লেখ্য ছিল পুলিশের রাষ্ট্রীয় কাজে বাধাদানের এই মামলায় প্রায় দুই বছর পর গত ২৪ সেপ্টেম্বর রোজ সোমবার রাজবাড়ী দুই নম্বর আমলি আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের জন্য আবেদন
করেন।

সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবু হাসান খায়রুল্লাহ জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে শেখ নিজাম কে কারাগারে পাঠান। শেখ মো.নিজাম উদ্দিন গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও রাজবাড়ী জেলা বিএনপি আহবায়ক কমিটির অন্যতম এক জন সদস্য এবং গোয়ালান্দ পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের তিন তিন বারের নির্বাচিত ও সফল কাউন্সিলর। জানা যায় যে ,২০১৮ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর পুলিশ বাদী হয়ে গোলন্দঘাট থানায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৪৭ জন নেতাকর্মীকে আসামি করেন দন্ডবিধি ১৮৬, ৩৩২, ৩৩৩ ও ৩৫৩ ধারায়
একটি মামলা দায়ের করেন।

সেই মামলায় তৎকালীন সময় শেখ নিজাম উদ্দিন হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। জামিনের মের্য়াদ শেষ হওয়ার পর তিনি নিম্ন আদালতে জামিনের জন্য আবেদন করেন কিন্তু নিম্ন আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে নিম্ন আদালতে আবারো জামিনের জন্য আবেদন করলে তাহা নামঞ্জুর করা হয়।

এবং পরবর্তীতে হাইকোর্ট থেকে ছয় মাসের জামিন পান। দীর্ঘ এক মাস পর ২৪ সেপ্টেম্বার ২০২০ রোজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার সময় রাজবাড়ী কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন এই নেতা। এ সময় দলীয় নেতা-কর্মী তাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন। সে সময় জেল গেটে উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী জেলা বিএনপি’র আহবায়ক অ্যাডভোকেট লিয়াকত হোসেন জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মঞ্জুরুল আলম দুলাল, রাজবাড়ী জেলা ছাত্রদলের
সাবেক সাধারন সম্পাদক এম,এ খালেদ (পাভেল) সহ জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ এবং গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হয়ে শেখ মো. নিজাম কে ফুলের মালা পরিয়ে বরণ করে নেন।