কুষ্টিয়া কুমারখালীতে মেয়াদ বিহীন পন্য বিক্রির অভিযোগ

কুষ্টিয়া জেলা প্র্রতিনিধি: কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলার হল বাজার এলাকায় রাহাত বেকারী এন্ড কনফেকশনারিতে মেয়াদ বিহীন কিছু পন্য বিক্রীর অভিযোগ উঠেছে। আজ (২০) জুন শনিবার বিকাল ৬ টার সময় একজন গ্রাহক কিছু পন্য ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড দিয়েছেন বলে জানা যায়।

রাহাত বেকারি এন্ড কনফেকশনারিতে কেক ও বিস্কুটের পেকেটে নেই কোনো উৎপাদন তারিখ ও মেয়াদ উত্তীর্ণ তারিখ, যেখানে ভোক্তা অধিকার আইনে সুস্পষ্টভাবে উলে­খ করা আছে পণ্যের উৎপাদন তারিখ ও মেয়াদ উত্তীর্ণ তারিখ উলে­খ থাকতে হবে সেখানে ভোক্তা অধিকার আইন না মেনে কিসের বলের উপর রাহাত বেকারী এন্ড কনফেকশনারী মেয়াদবিহীন পণ্য বাজারজাত করছে প্রশ্ন সাধারণ ক্রেতার বিষয়টি ভোক্তা অধিকার কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিনে দেখা যায় রাহাত বেকারি এন্ড কনফেকশনারিতে বেশ কিছু পারুটি প্যাকেটের গায়ে মেয়াদের কোন কাগজ পাওয়া যায়নি। ছিল না কোন স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম, সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত তার দোকান খোলা অবস্থা দেখা যায়। রাহাত বেকারি এন্ড কনফেকশনারিতে মালিক বলেন তিনি বিষয়টি নিয়ে অস্বীকার করেন। পারুটি প্যাকেটের গায়ে মেয়াদের কাগজ না থাকার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন এগুলো হচ্ছে আমার অর্ডারের মাল ছিল। তাই এগুলোতে দেওয়া হয়নি।

অনেক সময় কাষ্টমার দ্রুত এবং টাটকা পারুটি চায় এজন্য এগুলোতে আর দেওয়া হয় না। তিনি দোকান খোলার বিষয়ে বলেন আমি অনুমতি দিয়ে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত দোকান খোলা রেখেছি। এলাকাবাসীরা জানান এর আগেও অনেক বার রাহাত বেকারি এন্ড কনফেকশনারিতে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা করা হয়েছিল। তবে এ ধরনের মেয়াদ বিহীন পন্য সাধারণ জনগণের কাছে বিক্রি না করার আহবান জানান।

এ বিষয়ে কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খানের সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি জানান মেয়াদ বিহীন পন্য বিক্রি নিষেধ। এ ধরনের কেউ যদি করে তাহলে আমরা অবশ্য ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এর ব্যবস্থা গ্রহণ করব।